জলবায়ুর পরিবর্তন বর্তমান ও ইতিহাস


 জলবায়ুর পরিবর্তন

সৃষ্টির পর পৃথিবী ছিল একটি জ্বলন্ত আগুনের পিণ্ডের মতো। পরবর্তীকালে কোটি কোটি বছর ধরে পৃথিবীর উপরিভাগ শীতল হতে থাকে। অবশ্য পৃথিবীর অভ্যন্তরভাগ এখনও যথেষ্ট উত্তপ্ত। ভূপৃষ্ঠ শীতল হতে হতে তাতে একদা প্রাণ সৃষ্টির অনুকূল পরিবেশ তৈরি হয়। সুদূর অতীতকাল থেকেই পৃথিবীতে বারংবার জলবায়ুর পরিবর্তন ঘটেছে। হিমবাহ ও বরফের আস্তরণ, পললের বিভিন্ন স্তর, সমুদ্র সমতলের উত্থান পতন, বিভিন্ন জীবাশ্মের গায়ে ছাপ বা প্রভাব প্রভৃতি থেকে প্রাচীনকালে জলবায়ুর পরিবর্তনের প্রমাণ পাওয়া যায়।

বিভিন্ন যুপে জলবায়ুর পরিবর্তন : প্রোটেরোজোয়িক যুগের আগেকার জলবায়ু সম্পর্কে বিশেষ কিছু জানা যায় না। প্রোটেরোজোয়িক যুগ থেকে, বিশেষ করে নিম্ন প্রোটেরোজোয়িক যুগ থেকে বিভিন্ন যুগে পৃথিবীর জলবায়ুর পরিবর্তন ঘটে। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য যে, জলবায়ুর এই পরিবর্তনের যুগে পৃথিবীর গড় তাপমাত্রা বর্তমানকালের গড় তাপমাত্রার চেয়ে বেশি ছিল। কিন্তু মাঝে মাঝে পৃথিবীর তাপমাত্রা অস্বাভাবিকভাবে হ্রাস পেয়ে বিভিন্ন হিমযুগের আবির্ভাব ঘটেছিল। নিম্ন প্রোটেরোজোয়িক যুগের পর থেকে কোয়াটারনারি হিমযুগ পর্যন্ত পৃথিবীতে মোট চারটি হিমযুগ এসেছিল। যেমন—

  1. নিম্ন প্রোটেরোজোয়িক হিমযুগ : আজ থেকে অন্তত ৫৭ কোটি বছর পূর্বে এই হিমযুগের অস্তিত্ব ছিল।
  2. নিম্নক্যামব্রিয়ান হিমযুগ : আজ থেকে অন্তত ৫০ কোটি বছর পূর্বে পৃথিবীতে এই হিমযুগ বিরাজ করছিল।
  3. পার্মো-কার্বনিফেরাস হিমযুগ: আজ থেকে অন্তত ২৮ কোটি বছর পূর্বে পৃথিবীতে এই হিমযুগের শুরু হয়েছিল।
  4. কোয়াটারনারি হিমযুগ : আজ থেকে অন্তত ৩০ লক্ষ বছর পূর্বে এই হিমযুগ শুরু হয়েছিল এবং অন্তত ১০ হাজার বছর পূর্ব পর্যন্ত এই যুগ পৃথিবীতে বিরাজ করেছিল। এ যুগের শেষ পর্ব অর্থাৎ প্লেইস্টোসিন উপযুগ শুরু হয়েছিল আজ থেকে অন্তত ২০ লক্ষ বছর পূর্বে। প্লেইস্টোসিন পর্বের হিমযুগটি একটানা হিমযুগ ছিল না। এ যুগে চারটি ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র হিমযুগের সৃষ্টি হয়েছিল। এ সম্পর্কে নীচে বিস্তারিতভাবে আলোচনা করা হল—

তুষার যুগ ও উম্ন যুগের বারবার ফিরে আসা

 প্লেইস্টোসিন যুগে জলবায়ুতে অস্বাভাবিক বৈশিষ্ট্য লক্ষ করা যায়। তুষার ও উয় যুগ: প্লেইস্টোসিন যুগে বেশ কয়েকবার পর্যায়ক্রমে তুষার যুগ ও উয় যুগ ফিরে ফিরে এসেছিল। এক একটি তুষার বা শীতল এবং উন্ন পর্যায় গড়ে প্রায় ১ লক্ষ ২৫ হাজার বছর স্থায়ী হয়েছিল। ড. আলব্রেখট পেঙ্ক ও ড. ব্রুকনার তাঁদের গবেষণায় দেখিয়েছেন যে, প্লেইস্টোসিন যুগে মোট চারটি শীতল পর্যায় এবং তিনটি উম্ন পর্যায় এসেছিল। তারা এই চারটি তুষার যুগকে যথাক্রমে—

  • গুন্জ (Gunz)
  • মিন্‌ডেল (Mindel)
  • রিস্ (Riss)
  • ঊরম্ (Wurm) নামে চিহ্নিত করেছেন।

একইভাবে এই চারটি তুষার যুগের মধ্যবর্তী তিনটি উঘ্ন যুগকে যথাক্রমে গুন্জ মিডেল, মিডেল-রিস্ এবং রিস্-উরম্ নামে চিহ্নিত করেছেন। প্রাচীন প্রস্তর যুগের সূচনা থেকে প্রথম ও দ্বিতীয় তুষার যুগ (অর্থাৎ গুনজ্ ও মিনডেল) পর্যন্ত সময়কালে প্রাচীন প্রস্তর যুগের প্রথম পর্ব বিরাজমান ছিল। তৃতীয় তুষার যুগ (অর্থাৎ রিস্) থেকে শুরু করে চতুর্থ তুষার যুগের (অর্থৎ ঊরম্) প্রথম ভাগ পর্যন্ত পৃথিবীতে প্রাচীন প্রস্তর যুগের মধ্য পর্ব বিরাজ করেছিল। আর প্লেইস্টোসিন যুগের শেষ ভাগ বা চতুর্থ তুষার যুগে (অর্থাৎ ঊরম্) প্রাচীন প্রস্তর যুগের শেষ পর্ব বিরাজমান ছিল। আজ থেকে প্রায় ১০ হাজার বছর পূর্বে সর্বশেষ তুষার যুগ বিদায় নিয়েছে।

তুষার যুগের প্রাধান্য: প্লেইস্টোসিন যুগে বেশ কয়েকবার তুষার ও উন্ন যুগ পর্যায়ক্রমে ফিরে ফিরে এলেও এ যুগের অধিকাংশ সময়ই শীতল পর্বের অস্তিত্ব ছিল। অনুমান করা হয় যে, তুষার যুগে অধিকাংশ সময়ই পৃথিবীর তাপমাত্রা ০° সেন্টিগ্রেড থেকে ৬° সেন্টিগ্রেডের মধ্যে বিরাজ করত। এরূপ শীতল জলবায়ুর ফলে এ যুগে পৃথিবীর বৃহদংশ বরফের চাদরে ঢাকা পড়ে গিয়েছিল।


Leave a Comment