টীকা লেখো : ওয়ার্কার্স এ্যান্ড পেজেন্টস পার্টি ।

টেলিগ্রাম এ জয়েন করুন

Table Of Contents

টীকা লেখো : ওয়ার্কার্স এ্যান্ড পেজেন্টস পার্টি ।

অসহযোগ আন্দোলনের পরবর্তী সময়ে ১৯২৭ স্টাব্দ পর্যন্ত শ্রমিক ও কৃষক আন্দোলন স্তিমিত হয়ে মুজাফ্ফর আহমেদ যায় । এইরূপ পরিস্থিতিতে ভারতে গণকমিউনিস্ট শ্রমিক ও কৃষকদের সংগঠিত করার লক্ষ্যে ১৯২৮ খ্রিস্টাব্দে গড়ে ওঠে — ‘ ওয়ার্কার্স এ্যান্ড পেজেন্টস।মুজাফর আহমেদ

মুজাফর আহমেদ

ওয়ার্কস অ্যান্ড পেজেন্টস পার্টি কেন প্রতিষ্ঠিত হয়

শ্রমিক – কৃষকদের লক্ষ্য পূরণের উদ্দেশ্যে ‘ দি লেবার পেজেন্টস্ স্বরাজ পার্টি অব দ্য ন্যাশনাল কংগ্রেস ’ প্রতিষ্ঠা করা হয় । পরবর্তীতে এই পার্টির নাম পরিবর্তন করে মুজাফ্ফর আহমেদ , কবি নজরুল ইসলাম , এস . এ . ডাঙ্গে , কুতুবউদ্দিন আহমেদ এবং হেমন্ত কুমার সরকারের নেতৃত্বে গড়ে ওঠে ‘ পেজেন্টস্ এ্যান্ড ওয়ার্কার্স পার্টি ’ । ১৯২৮ খ্রিস্টাব্দে পুনরায় এর নাম পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে ‘ ওয়াকার্স এ্যান্ড পেজেন্টস্ পার্টি ’ ( ‘ Workers and Peasants Party ) আত্মপ্রকাশ করে ।

ওয়ার্কার্স এ্যান্ড পেজেন্টস পার্টির উদ্দেশ্য

ওয়াকার্স এ্যান্ড পেজেন্টস্ পার্টির উদ্দেশ্যগুলি হল— ( ১ ) শ্রমিকদের কাজের সময় সীমা নির্ধারণ ( ২ ) বাক্ স্বাধীনতা অর্জন , ( ৩ ) সংবাদপত্রের স্বাধীনতা অর্জন , ( ৪ ) জমিদারী প্রথার বিলোপ সাধন এবং ( ৫ ) সর্বনিম্ন মজুরি আইন প্রবর্তন ইত্যাদি । এই সংগঠনটি তার উদ্দেশ্য পুরণের লক্ষ্যে যে আন্দোলনগুলি চালিয়েছিল , জাতীয় কংগ্রেসও সেইসব আন্দোলনের প্রতি পরোক্ষ বা প্রত্যক্ষভাবে সহানুভূতি দেখিয়েছিল । কলকাতার ধাঁচে পরবর্তীকালে পাঞ্জাব ও বোম্বাই সমেত আরো অন্যান্য অঞ্চলে এইরূপ সংগঠন আত্মপ্রকাশ করে । তবে ট্রেড ইউনিয়ন আন্দোলনে সংগঠনটি সফলতা পেলেও কৃষকদের সংগঠিত করার ক্ষেত্রে সাফল্য ছিল ক্ষীণ ।

 

 

 

 

টেলিগ্রাম এ জয়েন করুন
Share on:

1 thought on “টীকা লেখো : ওয়ার্কার্স এ্যান্ড পেজেন্টস পার্টি ।”

  1. নিষিদ্ধ :- ১৯২৯ সালে ব্রিটিশ সরকার এই দলটিকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করেন।

    Reply

Leave a Comment