ইন্টারনেটের বিবর্তন: ইন্টারনেট আবিষ্কারের ইতিহাস: Evolution of Internet in Bengali

মার্কিন প্রতিরক্ষা বিভাগের অ্যাডভান্সড রিসার্চ প্রজেক্টস এজেন্সি (APRA) মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের চারটি বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার নেটওয়ার্কিং করে ইন্টারনেট ‘এপ্রানেট’ চালু করেছে।

ইন্টারনেটের বিবর্তন
ইন্টারনেটের বিবর্তন

ইন্টারনেট আবিষ্কারের ইতিহাস

  • 1969 খ্রিস্টাব্দ: মার্কিন প্রতিরক্ষা বিভাগের অ্যাডভান্সড রিসার্চ প্রজেক্টস এজেন্সি (APRA) মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের চারটি বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার নেটওয়ার্কিং করে ইন্টারনেট ‘APRANET’ চালু করে। এটি গবেষণা, শিক্ষা এবং সরকারি প্রতিষ্ঠানের জন্য তৈরি করা হয়েছিল। এর আরেকটি উদ্দেশ্য ছিল জরুরী পরিস্থিতিতে যখন যোগাযোগের সমস্ত মাধ্যম নিষ্ক্রিয় করা হয়েছে তখন একে অপরের সাথে যোগাযোগ স্থাপন করা। 1971 সালের মধ্যে, APRA নেট প্রায় 2 ডজন কম্পিউটার সংযুক্ত করেছিল।
  • 1972 খ্রিস্টাব্দ: ইলেকট্রনিক মেইল ​​বা ই-মেইলের প্রবর্তন।

আরও দেখুন: প্রোগ্রামিং ভাষা কাকে বলে?


  • 1973 AD: ট্রান্সমিশন কন্ট্রোল প্রোটোকল/ইন্টারনেট প্রোটোকল (TCP/IP) ডিজাইন করা হয়েছিল। 1983 সালের মধ্যে, এটি ইন্টারনেটের মাধ্যমে দুটি কম্পিউটারের মধ্যে যোগাযোগের মাধ্যম হয়ে ওঠে। এই প্রোটোকলগুলির মধ্যে একটি, FTP (ফাইল ট্রান্সফার প্রোটোকল) এর সাহায্যে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীরা যেকোনো কম্পিউটারের সাথে সংযোগ করে ফাইল ডাউনলোড করতে পারেন।
  • 1983 খ্রিস্টাব্দ: Apranet এর সামরিক অংশ MILNET এ স্থাপন করা হয়।
  • 1986 খ্রি: ইউ. s ন্যাশনাল সায়েন্স ফাউন্ডেশন (NSF) NSFNET চালু করেছে। এটি ইন্টারনেট প্রযুক্তি ব্যবহার করার জন্য প্রথম বড় মাপের নেটওয়ার্ক ছিল।

আরও পড়ুন: কম্পিউটারের পরিচিতি: Computer Basic Knowledge in Bengali


  • 1988 খ্রিস্টাব্দ: ফিনল্যান্ডের জাক্কো ওক্রেইন ইন্টারনেট চ্যাটিং তৈরি করেছিলেন।
  • 1989 খ্রিস্টাব্দ: ম্যাকগিল ইউনিভার্সিটি, মন্ট্রিলের পিটার ডয়েচ প্রথমবারের মতো ইন্টারনেটের একটি সূচক তৈরি করার চেষ্টা করেছিলেন। থিংকিং মেশিন কর্পোরেশনের ব্রুস্টার কাহলে আরেকটি ইনডেক্সিং সিক্সডি, WAIS (ওয়াইড এরিয়া ইনফরমেশন সার্ভার) তৈরি করেছেন। CERN-এর Berners-Le (European Laboratory for Patkal Physics) ইন্টারনেটের মাধ্যমে তথ্য বিতরণের জন্য একটি নতুন প্রযুক্তি উদ্ভাবন করেন, যা শেষ পর্যন্ত ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েব নামে পরিচিত হয়। এটি ওয়েব হাইপারটেক্সট এর উপর ভিত্তি করে তৈরি করা হয়েছে, যা একজন ইন্টারনেট ব্যবহারকারীকে ইন্টারনেটের বিভিন্ন সাইটে একটি ডকুমেন্টকে অন্যটির সাথে লিঙ্ক করতে দেয়। এটি হাইপারলিঙ্কের মাধ্যমে করা হয় (বিশেষ করে প্রোগ্রাম করা শব্দ, বোতাম বা গ্রাফিক্স)।
  • 1991 খ্রিস্টাব্দ: প্রথম ব্যবহারকারী বান্ধব ইন্টারফেসের বিকাশ, মিনেসোটা বিশ্ববিদ্যালয়ের (মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র) গোফার। গোফার তখন থেকে সবচেয়ে জনপ্রিয় ইন্টারফেস হিসেবে রয়ে গেছে; NSFnet বাণিজ্যিক ট্রাফিকের জন্য খোলা হয়েছে।

আরও দেখুন: কোয়ান্টাম কম্পিউটার: কোয়ান্টাম কম্পিউটার কাকে বলে?


  • 1993 খ্রিস্টাব্দ: ‘ন্যাশনাল সেন্টার অফ সুপারকম্পিউটিং অ্যাপ্লিকেশন’-এর মার্ক অ্যান্ড্রিসন মোজাইক নামে একটি নেভিগেটিং সিস্টেম তৈরি করেন। এই সফ্টওয়্যারের মাধ্যমে, ইন্টারনেট একটি ম্যাগাজিন বিন্যাসে চালু করা হয়েছিল। এই সফ্টওয়্যারটি ইন্টারনেটে পাঠ্য এবং গ্রাফিক্স উপলব্ধ করেছে। আজও এটি ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েবের প্রধান নেভিগেটিং সিস্টেম।
  • 1994 খ্রিস্টাব্দ: নেটস্কেপ কমিউনিকেশন এবং 1995 সালে মাইক্রোসফ্ট বাজারে তাদের নিজস্ব ব্রাউজার চালু করে। এই ব্রাউজারগুলি ব্যবহারকারীদের জন্য ইন্টারনেট অ্যাক্সেস করা খুব সহজ করে তুলেছে।
  • 1995 খ্রিস্টাব্দ: ইন্টারনেটে প্রাথমিক বাণিজ্যিক সাইটগুলি চালু করা হয়েছিল। ই-মেইলের মাধ্যমে ব্যাপক বিপণন প্রচারণা চালানো শুরু হয়।
  • 1996 খ্রিস্টাব্দ: 1996 সাল নাগাদ, ইন্টারনেট বিশ্বজুড়ে অনেক জনপ্রিয়তা অর্জন করেছিল। ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা 45 মিলিয়নে পৌঁছেছে।
  • 1999 খ্রিস্টাব্দ: ই-কমার্সের ধারণাটি খুব দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে, যার কারণে ইন্টারনেটের মাধ্যমে কেনাকাটা জনপ্রিয় হয়ে ওঠে।
  • 2003 খ্রিস্টাব্দ: নিউজিল্যান্ডে ‘এনআইইউই’ ইন্টারনেটে একটি দেশব্যাপী ‘ওয়ারলেস অ্যাক্সেস’ সিস্টেম ব্যবহার শুরু করে (এটি শব্দ-স্নাব প্রযুক্তি ব্যবহার করে)।

আরও পড়ুন : কম্পিউটার সম্পর্কে সাধারণ জ্ঞান

Join Telegram
Share on:

Leave a Comment