মুর্শিদাবাদ দর্শনীয় স্থান | Murshidabad The City of Palaces in Bengali

WhatsApp Group Join Now
Telegram Group Join Now
🔰🎟️ ঠিকানা:  মুর্শিদাবাদ, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত মানচিত্র

মুর্শিদাবাদ উত্তরবঙ্গের মুর্শিদাবাদ জেলার একটি শহর, যা ভাগীরথী নদীর দক্ষিণ তীরে অবস্থিত। বাংলার প্রাক-ঔপনিবেশিক ইতিহাস মুর্শিদাবাদের বৃদ্ধি, অগ্রগতি এবং পতনের সাথে অঙ্গাঙ্গীভাবে জড়িত। এটি 18 শতকের পূর্ব ভারতের সমস্ত ঘটনা পর্যবেক্ষণ করে, একটি প্ল্যাটফর্ম হিসাবে কাজ করে যেখান থেকে ঔপনিবেশিক সুবিধাগুলি চালু করা যেতে পারে এবং পরবর্তীকালে 1857 সালে একটি সাম্রাজ্যবাদী শক্তিতে পরিণত হয়। মুর্শিদাবাদ পর্যটন স্থানগুলি ভারতের সেরা ঐতিহাসিক পর্যটন স্থান।

শহরটি, যেটি পূর্বে বাংলার একটি শক্তিকেন্দ্র ছিল, এখনও বেশ কিছু স্মৃতিসৌধ এবং সমাধির আকারে রাজকীয় ঐতিহ্য বহন করে। মুর্শিদাবাদ ভ্রমণ নিঃসন্দেহে আপনাকে বাংলার সমৃদ্ধ মহান সময়ে নিয়ে যাবে এবং ইতিহাসকে জীবন্ত করে তুলবে!

মুর্শিদাবাদে যা দেখতে পাবেন:

মুর্শিদাবাদে অনেক ঐতিহাসিক এবং জাঁকজমকপূর্ণ পর্যটন স্থান রয়েছে, যা আপনি দেখতে পারেন তবে আমরা মুর্শিদাবাদের সবচেয়ে বিখ্যাত স্থানগুলিকে তুলে ধরব যেখানে লোকেরা যেতে পারে।

হাজারদুয়ারি প্রাসাদ:

মুর্শিদাবাদের প্রধান পর্যটক আকর্ষণ হল হাজার দরজার প্রাসাদ। এটি 1837 সালে মীর জাফরের বংশধর নবাব নাজিম হুমাউন জাহ-এর জন্য ডানকান ম্যাকলিওড দ্বারা নির্মিত হয়েছিল এবং এতে এক হাজার দরজা রয়েছে (শুধুমাত্র 900টি প্রকৃত), 114টি কক্ষ এবং 8টি গ্যালারী রয়েছে। এটি এখন একটি জাদুঘর যেখানে বর্ম, বিস্ময়কর চিত্রকর্ম, নবাবদের বিস্তৃত প্রতিকৃতি, চীন থেকে হাতির দাঁতের চমত্কার টুকরা এবং অন্যান্য অনেক উল্লেখযোগ্য শিল্পকর্ম রয়েছে।

নসিপুর প্রাসাদ:

এটি হাজারদুয়ারি প্রাসাদের একটি স্কেল মডেল। রাজা কীর্তি চন্দ্র সিনহা বাহাদুর 1900 সালে এটি নির্মাণ করেছিলেন এবং এখনও এটির অনেকগুলি হিন্দু চিত্রের রেন্ডারিং সহ একটি রহস্যময় মহিমা হিসাবে রয়ে গেছে।

নিজামত ইমামবাড়া:

সিরাজ-উদ-দৌলা কর্তৃক নির্মিত ইমামবাড়াটি মাটিতে পুড়িয়ে ফেলার পর, 1847 খ্রিস্টাব্দে নবাব নাজিম মনসুর আলী খান ফেরাদুন জাহ কর্তৃক নির্মিত নিজামত ইমামবাড়াটি হাজারদুয়ারির উত্তর সম্মুখভাগের সমান্তরালে চলে। এই ইমামবাড়াটি এগারো মাসেরও কম সময়ের মধ্যে নির্মিত হয়েছিল। ইমামবাড়া, বাংলার সবচেয়ে বড় মসজিদ, সম্ভবত ভারতের সবচেয়ে বড় মসজিদ। এটি সমান আকারের তিনটি চতুর্ভুজে বিভক্ত। এখানে বিশাল স্তম্ভ, মেঝেতে চাইনিজ টাইলস এবং অন্যান্য জিনিসের মধ্যে ফোয়ারা রয়েছে। ইমামবাড়ার ভিতরেও একটি মাজার রয়েছে। খিলান ও স্তম্ভের শীর্ষে কোরান শরীফের নির্যাসও দেখা যেতে পারে।

জাফরগঞ্জ কবরস্থান:

জাফরাগঞ্জ কবরস্থান হাজারদুয়ারি থেকে 1.5 কিলোমিটার উত্তরে দেউরির পাশে অবস্থিত। মির্জাফর ও তার বংশধরদের এখানে এক হাজারেরও বেশি কবরে সমাহিত করা হয়েছে। ফটকের পূর্ব প্রান্ত থেকে তৃতীয় অবস্থানে ছিলেন মির্জাফর। মির্জাফরের স্ত্রী মণি বেগম ও বাবু বেগমকেও এই কবরস্থানে দাফন করা হয়।

খোশ বাগ:

ভাগীরথীর অপর তীরে খোশ বাগ। নবাব আলীবর্দী খানের সমাধি, আলীবর্দীর মা, সিরাজ-উদ-দৌলা এবং তার স্ত্রী লুৎফান্নেশা এবং অন্যান্য নবাব পরিবার এখানে বসবাস করত। খোশবাগ কবরস্থানের আয়তন ৭.৬৫ একর।

Join Telegram
জাহানকোষা কামান:

জাহান কোশা কামান বা “বিশ্ব ধ্বংসকারী” একটি সুন্দর দৃশ্য এবং বাঙালি ইতিহাসের একটি আকর্ষণীয় অংশ। এটি মুর্শিদাবাদ জেলার কাটরাতে গর্বের সাথে দাঁড়িয়ে আছে এবং এখনও এটি বাঙালি যুদ্ধের একটি আইকনিক প্রতীক। জাহান কোষ কামানটি 1637 খ্রিস্টাব্দে মহান মুঘল রাজা শাহজাহানের শাসনামলে সেই সময়ের বিখ্যাত বন্দুকধারী জনার্দন কর্মকার ঢাকা শহরে তৈরি করেছিলেন। ইসলাম খান যখন বাংলার সুবাহদার ছিলেন, তখন তাকে শ্রদ্ধা জানানোর জন্য এটি স্থাপন করা হয়েছিল। পুরানো কদম শরীফ মসজিদের বিশালত্বের কারণে পর্যটকরা এই স্থানে তাদের পরিদর্শন করতে পছন্দ করে, যা সরাসরি জাহান কোষা কামানের পাশে নির্মিত।

কাটরা মসজিদ:

বেরহামপুর-লালগোলা রোডে, এই জাঁকজমকপূর্ণ কাঠামোটি মুর্শিদাবাদ রেলওয়ে স্টেশন থেকে প্রায় 1.5 কিলোমিটার দূরে। নবাব মুর্শিদ কুলি খান 1723-24 সালে এই সুউচ্চ ভবনটি তৈরি করেছিলেন এবং এটি এখন অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ পর্যটন আকর্ষণ। বিশাল কপোলা এবং উঁচু মিনার সহ বিশাল ভবনটির সামনের সিঁড়ির নীচে একটি দরিদ্র নবাব কবরস্থান রয়েছে। ইট-নির্মিত এই মসজিদের বৈশিষ্ট্যগুলি দোতলা গম্বুজ বিশিষ্ট ঘরগুলির সারি দ্বারা ঘেরা যা একটি উঠানের ক্লোস্টার তৈরি করে।

কিভাবে পৌছব:

আকাশ পথে:

মুর্শিদাবাদের নিকটতম বিমানবন্দর হল কলকাতার এনএসসি বোস বিমানবন্দর।

ট্রেনে: 

নিকটতম ট্রেন স্টেশন হল বেরহামপুর কোর্ট, যেটি কলকাতার সাথে ভালভাবে যুক্ত।

রাস্তা দ্বারা:

ভারতের পরিবহন ব্যবস্থা বেরহামপুর এবং কলকাতাকে দেশের বাকি অংশের সাথে সংযুক্ত করে। কলকাতা থেকে মুর্শিদাবাদ ও বেরহামপুরের বাস নিয়মিত চলাচল করে।

আশা করি আপনি মুর্শিদাবাদ দ্য সিটি অফ প্যালেসেস – মুর্শিদাবাদের পর্যটন স্থানের এই নিবন্ধটি পছন্দ করেছেন। নীচের মন্তব্য বিভাগে আমার সাথে আপনার মতামত ভাগ করুন. যদি এই নিবন্ধটি সহায়ক ছিল, ফেসবুক এবং টুইটারে আপনার বন্ধুদের সাথে এই পোস্টটি ভাগ করুন। এটি একটি অনেক মানে হবে।

Leave a Comment