জেনেরিক ওষুধ কি এবং কেন জেনেরিক ওষুধ সস্তা?

টেলিগ্রাম এ জয়েন করুন

জেনেরিক মেডিসিন বা ‘আন্তর্জাতিক অ-মালিকানামূলক নাম ওষুধ’ও বলা হয়, যার উপাদানগুলি ব্র্যান্ডেড ওষুধের মতো। এছাড়াও, এই ওষুধগুলি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (WHO) ‘প্রয়োজনীয় ওষুধের’ তালিকার মানদণ্ডের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ। জেনেরিক ওষুধের ব্যবহার বর্তমানে মোট ওষুধের বাজারের মাত্র 10 থেকে 12 শতাংশ।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে , চিকিত্সকরা যদি রোগীদের জেনেরিক ওষুধ লিখে দেন, তাহলে উন্নত দেশগুলিতে স্বাস্থ্যসেবার খরচ 70% এবং উন্নয়নশীল দেশগুলিতে আরও বেশি হ্রাস করা যেতে পারে। জেনেরিক ওষুধের ব্যবহার বর্তমানে মোট ওষুধের বাজারের মাত্র 10 থেকে 12 শতাংশ। মুনাফা, কমিশন ও উপহারের লোভে ওষুধ কোম্পানি, মেডিক্যাল স্টোর ও চিকিৎসকরা কেউ চায় না জেনেরিক ওষুধের চাহিদা বাড়ুক। বর্তমানে বাজারে প্রায় সব ধরনের জেনেরিক ওষুধ পাওয়া যায়, যার দাম ব্র্যান্ডেড ওষুধের তুলনায় অনেক কম, যার কারণে এই ওষুধগুলি দরিদ্র শ্রেণীর মানুষ সহজেই কিনতে পারে।


আরও দেখুন: ক্যাপসুল সম্পর্কে 6টি অজানা তথ্য


জেনেরিক ঔষধ কি?

জেনেরিক মেডিসিন বা ‘আন্তর্জাতিক অ-মালিকানামূলক নাম ওষুধ’ও বলা হয়, যার উপাদানগুলি ব্র্যান্ডেড ওষুধের মতো। এছাড়াও, এই ওষুধগুলি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (WHO)-এর ‘প্রয়োজনীয় ওষুধ’ তালিকার মানদণ্ডের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ।

জেনেরিক ওষুধ বাজারে আনতে হলে ব্র্যান্ডেড ওষুধের জন্য যেভাবে অনুমতি ও লাইসেন্স নিতে হয়। ব্র্যান্ডেড ওষুধের মতো জেনেরিক ওষুধকেও মানসম্মত সব প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে যেতে হয়।

যেকোনো একটি রোগের চিকিৎসার জন্য সব ধরনের গবেষণা ও গবেষণার পর একটি রাসায়নিক (লবণ) প্রস্তুত করা হয়, যা সহজলভ্য করার জন্য ওষুধ আকারে দেওয়া হয়। প্রতিটি কোম্পানি বিভিন্ন নামে এই লবণ বিক্রি করে। কেউ কেউ দামে আবার কেউ কম দামে বিক্রি করে।কিন্তু লবণের গঠন ও রোগের কথা মাথায় রেখে এই লবণের জেনেরিক নাম নির্ধারণ করে একটি বিশেষ কমিটি। জেনেরিক মেডিসিনের নাম সারা বিশ্বে একটাই হবে যেমন- প্রতিটা কোম্পানি জ্বরে ব্যবহৃত প্যারাসিটামল ট্যাবলেট তৈরি করে বিভিন্ন নামে, কিন্তু সেটা জেনেরিক হলে সব দেশেই শুধু প্যারাসিটামল লেখা থাকবে।

জেনেরিক ওষুধের দাম কম কেন?

ব্র্যান্ডেড ওষুধের দাম কোম্পানিগুলো নিজেরাই নির্ধারণ করে, যেখানে জেনেরিক ওষুধের দাম নির্বিচারে নির্ধারণ করা যায় না। জেনেরিক ওষুধের দাম নির্ধারণে সরকার হস্তক্ষেপ করে।

আপনি জেনেরিক লবণের ওষুধ আপনার ডাক্তার আপনাকে যে ওষুধ দিয়ে থাকেন তার চেয়ে অনেক সস্তায় পেতে পারেন। দামি ওষুধের দাম এবং একই লবণের জেনেরিক ওষুধের মধ্যে অন্তত পাঁচ থেকে দশ গুণের পার্থক্য রয়েছে। কখনও কখনও জেনেরিক ওষুধ এবং ব্র্যান্ডেড ওষুধের দামের মধ্যে 90% পর্যন্ত পার্থক্য থাকে।

জেনেরিক ওষুধগুলি সস্তা কারণ এটি তৈরিকারী সংস্থাগুলিকে গবেষণা ও উন্নয়নের জন্য আলাদা পরীক্ষাগার স্থাপনের প্রয়োজন নেই। এ ছাড়া জেনেরিক ওষুধ প্রস্তুতকারকদের মধ্যে প্রতিযোগিতা রয়েছে, যার কারণে দামও কমে গেছে এবং সবচেয়ে বড় কারণ হলো জেনেরিক ওষুধ প্রস্তুতকারীরা তাদের ওষুধের বিজ্ঞাপন দেয় না, যার কারণে তাদের দাম অনেক কম হয়ে যায় এবং মানুষ এই ওষুধগুলি এখানে পাওয়া যায়। সস্তা দাম।

জেনেরিক ওষুধ কোনো পেটেন্ট ছাড়াই তৈরি ও বিতরণ করা হয়। জেনেরিক ওষুধ তৈরির পদ্ধতি পেটেন্ট করা যায় কিন্তু এর উপাদান পেটেন্ট করা যায় না। আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন জেনেরিক ওষুধের মান ব্র্যান্ডেড ওষুধের চেয়ে কম নয় বা কম কার্যকরও নয়। জেনেরিক ওষুধের ডোজ এবং পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া কিছু ব্র্যান্ডেড ওষুধের মতোই।

ব্লাড ক্যান্সারের জন্য ‘ গ্লাইক্যাভ ‘ ব্র্যান্ডের ওষুধের দাম এক মাসে 1,14,400 টাকা অন্য ব্র্যান্ডের ‘ ভেনেট ‘ ওষুধের দাম এক মাসের জন্য 11,400 টাকার কম।, একইভাবে, যদি কোলেস্টেরল-হ্রাসকারী ওষুধ ‘অ্যাস্ট্রোভেস্ট্যাটিন’ ব্র্যান্ডেড আকারে 10 মিলিগ্রামে থাকে, তাহলে এক বছরের জন্য এর ডোজ প্রায় 2300 টাকা, যখন এর জেনেরিক ওষুধ আসে মাত্র 365 টাকা। এই পার্থক্য গরীব বা ধনী সবার জন্যই বিশাল। গুরুতর রোগের ওষুধের বড় পার্থক্য, অনেক সময় পেটের রোগ, কিডনি, প্রস্রাব, পোড়া, হৃদরোগ, নিউরোলজি, ডায়াবেটিসের মতো রোগের ব্র্যান্ডেড ও জেনেরিক ওষুধের দামে ৫০০ গুণ পর্যন্ত পার্থক্য থাকে। যেমন, মৃগী রোগের জন্য একটি কোম্পানির ওষুধ আসে 75 টাকায়। যেখানে একই কোম্পানির জেনেরিক ওষুধও পাওয়া যাচ্ছে মাত্র ৫০ টাকায়।

এসব রোগের জেনেরিক ওষুধ সস্তা

কখনো ডাক্তাররা শুধু লবণের নাম দেন আবার কখনো শুধু ব্র্যান্ডেড ওষুধের নাম দেন। কিছু বিশেষ রোগ আছে যেখানে জেনেরিক ওষুধ আছে কিন্তু একই লবণের ব্র্যান্ডেড ওষুধের দাম বেশি। এগুলো হলো- নিউরোলজি, প্রস্রাব, হৃদরোগ, কিডনি, ডায়াবেটিস, পোড়া সমস্যা। এসব রোগের জেনেরিক ও ব্র্যান্ডেড ওষুধের দামেও রয়েছে বিস্তর পার্থক্য।

জেনারিক ডেভিয়েন্স কি
জেনারিক ডেভিয়েন্স

জেনেরিক এবং ব্র্যান্ডেড ওষুধের মধ্যে পার্থক্য কীভাবে জানবেন

একই লবণের দুটি ওষুধের দামের বড় পার্থক্য জেনেরিক ওষুধের প্রমাণ। হেলথকার্ট প্লাস এবং ফার্মা জন সমাধনের মতো অনেক মোবাইল অ্যাপও মানুষের সুবিধার জন্য উপলব্ধ, যার মাধ্যমে আপনি সহজেই সস্তায় ওষুধ কিনতে পারবেন।

জেনেরিক ওষুধ কিভাবে পাওয়া যায়?

আপনি যখনই একজন ডাক্তারের কাছে যান, তাকে জেনেরিক ওষুধ লিখে দিতে বলুন এবং মেডিক্যাল স্টোরেও জেনেরিক ওষুধের জন্য বলুন।

জেনেরিক ওষুধ পেতে প্রধান সমস্যা

এমনকি চিকিৎসকরা জেনেরিক ওষুধ লিখে দিলেও যে কোনো কোম্পানি মেডিকেল স্টোরে রোগীকে ওষুধ দিয়ে থাকে এই বলে যে তাদের কাছে নির্ধারিত ওষুধ নেই। কারণ যে ওষুধ কোম্পানি থেকে মেডিক্যাল স্টোরগুলো বেশি মার্জিন বা মুনাফা পায়, তারা একই কোম্পানির ওষুধ রোগীর কাছে বিক্রি করে। এমতাবস্থায় সরকারের দায়িত্ব শুধুমাত্র কিছু ব্র্যান্ডের জেনেরিক ওষুধ তৈরির অনুমতি পাওয়া উচিত। অনেক সময় ডাক্তার যে ওষুধ লিখে দেন এবং রোগী মেডিক্যাল স্টোর থেকে যে ওষুধ পান তাতে কম্পোজিশন ও লবণের পরিমাণ থাকে না বলে বলা হয়েছে। এক্ষেত্রে রোগী সম্পূর্ণ সুফল পায় না।

এমন পরিবেশে সরকারের উচিত একটি আইন প্রণয়ন করা এবং তা কঠোরভাবে অনুসরণ করা যাতে চিকিৎসকরা বাধ্যতামূলকভাবে রোগীদের জেনেরিক ওষুধ লিখে দেন এবং মেডিক্যাল স্টোরগুলো যেন বিনা দ্বিধায় সেই ওষুধগুলো মানুষের কাছে পৌঁছে দেয়।

টেলিগ্রাম এ জয়েন করুন

1 thought on “জেনেরিক ওষুধ কি এবং কেন জেনেরিক ওষুধ সস্তা?”

Leave a Comment