হজ কি?: মুসলমানরা হজে গেলে কী করে? আরও অনেক কিছু যা আপনার জানা দরকার

টেলিগ্রাম এ জয়েন করুন

সৌদি আরবের মক্কায় প্রায় ১০ লাখ মুসলমান হজের জন্য সমবেত হবেন বলে আশা করা হচ্ছে।

সৌদি আরবের মক্কায় প্রায় ১০ লাখ মুসলমান হজের জন্য সমবেত হবেন বলে আশা করা হচ্ছে
সৌদি আরবের মক্কায় প্রায় ১০ লাখ মুসলমান হজের জন্য সমবেত হবেন বলে আশা করা হচ্ছে

প্রতি বছর অনুষ্ঠিত হওয়া এই ধর্মীয় অনুষ্ঠানটি 7 জুলাই থেকে 11 জুলাই পর্যন্ত হয়। দুই বছর পর সৌদি আরবের মক্কায় এত বিপুল সংখ্যক ভক্তের সমাগম হচ্ছে। করোনা ভাইরাস সংক্রমণের কারণে হজ বিভিন্নভাবে নিষিদ্ধ করা হয়েছিল। তবে এবারের সংখ্যাও করোনার আগের সংখ্যার তুলনায় অনেক কম।

আসুন জেনে নিই হজ এবং এর সাথে সম্পর্কিত বড় বড় বিষয়গুলোঃ

হজ কি?

হজ ইসলামের পাঁচটি ফরজের একটি। বাকি চারটি কর্তব্য হলো- কলমা, রোজা, নামাজ ও যাকাত।

ধর্মীয় বিশ্বাস অনুযায়ী, শারীরিক ও আর্থিকভাবে সক্ষম প্রত্যেক মুসলমান তার জীবনে অন্তত একবার এই দায়িত্ব পালন করতে বাধ্য। ইসলামের বিশ্বাস অনুসারে, হযরত ইব্রাহিমকে আল্লাহ তায়ালা একটি তীর্থযাত্রা করতে এবং তা উৎসর্গ করতে বলেছিলেন।

ধর্মীয় বিশ্বাস অনুযায়ী, শারীরিক ও আর্থিকভাবে সক্ষম প্রত্যেক মুসলমান তার জীবনে অন্তত একবার এই দায়িত্ব পালন করতে বাধ্য। ইসলামের বিশ্বাস অনুসারে, হযরত ইব্রাহিমকে আল্লাহ তায়ালা একটি তীর্থযাত্রা করতে এবং তা উৎসর্গ করতে বলেছিলেন।

ইব্রাহিম এবং তার পুত্র ইসমাইল পাথরের একটি ছোট ঘনঘন ভবন নির্মাণ করেন। একে কাবা বলা হয়। পরবর্তীকালে ধীরে ধীরে মানুষ এখানে বিভিন্ন দেবতার পূজা শুরু করে।

মুসলমানরা বিশ্বাস করে যে ইসলামের শেষ নবী, হজরত মুহাম্মদ (570-632 খ্রিস্টাব্দ), কাবাকে আগের মতো একই অবস্থানে আনতে এবং সেখানে শুধুমাত্র আল্লাহর উপাসনা করার অনুমতি দেওয়ার জন্য আল্লাহ বলেছিলেন।

628 খ্রিস্টাব্দে, নবী মুহাম্মদ তার 1400 অনুসারী নিয়ে যাত্রা শুরু করেছিলেন। এটি ইসলামের প্রথম তীর্থযাত্রা হয়ে ওঠে এবং এই যাত্রায় হযরত ইব্রাহিমের ধর্মীয় ঐতিহ্য পুনঃপ্রতিষ্ঠিত হয়। একে হজ বলে।

প্রতি বছর সারা বিশ্বের মুসলমানরা হজ পালনে সৌদি আরবের মক্কায় পৌঁছান। হজ পাঁচ দিন সময় নেয় এবং ঈদুল আজহা বা বকরিদ দিয়ে শেষ হয়।

হজ কি?: মুসলমানরা হজে গেলে কী করে?
হজ কি?: মুসলমানরা হজে গেলে কী করে?

2022 সালের হজে কতজন লোক অংশগ্রহণ করেছে?

এ বছর ১০ লাখ দেশি-বিদেশি তীর্থযাত্রী আসবেন বলে আশা করা হচ্ছে। এর মধ্যে ৮৫% বিদেশী তীর্থযাত্রী।

এর আগে করোনার কারণে ২০২১ সালে প্রায় ৬০ হাজার মানুষকে হজে আসতে দেওয়া হয়েছিল, ২০২০ সালে এই সংখ্যা আরও কম ছিল।

দুই বছরে শুধু সৌদি আরবে বসবাসকারীরাই হজে যেতে পারতেন। তবে করোনার আগে ২০১৯ সালে প্রায় ২৫ লাখ মানুষ হজে গিয়েছিলেন।

এবার ভারতীয় হজযাত্রীদের জন্য ৭৯,২৩৭ জনের কোটা নির্ধারণ করা হয়েছে। ভারতীয়রাও দুই বছর পর হজে যাচ্ছেন। এর মধ্যে ভারতের হজ কমিটির মাধ্যমে 56,601 জন এবং হজ গ্রুপ সংগঠকদের মাধ্যমে 22,636 জন পৌঁছেছেন।

কোন দেশ থেকে মানুষ মক্কায় আসে?

সৌদি আরব প্রতিটি দেশ অনুযায়ী হজ কোটা প্রস্তুত করে। সবচেয়ে বেশি কোটা রয়েছে ইন্দোনেশিয়ায়। এর পরেই পাকিস্তান, ভারত, বাংলাদেশ, নাইজেরিয়ার নম্বর রয়েছে। এছাড়া ইরান, তুরস্ক, মিশর, ইথিওপিয়াসহ বিভিন্ন দেশ থেকে হজযাত্রীরা আসেন।

2022 সালের হজের জন্য বাধ্যতামূলক নিয়মগুলি কী কী ছিল?

সৌদি আরব সরকার হজের জন্য কিছু নিয়ম বেঁধে দিয়েছে। এতে বলা হয়েছে, প্রত্যেক হাজির জন্য অন্তত এক মাস আগে করোনা ভ্যাকসিনের উভয় ডোজ নেওয়া আবশ্যক। এছাড়াও, শুধুমাত্র 18 থেকে 65 বছর বয়সী লোকেরা হজে যেতে পারবেন।

ভারতের প্রেক্ষাপটে বলা যায়, মেহরামের সঙ্গে সাধারণত শিশু ও মহিলাদের হজে যাওয়ার অনুমতি দেওয়া হয়। মেহরাম মানে মহিলা হজযাত্রীর পুরুষ সঙ্গী, যিনি পুরো হজযাত্রার সময় মহিলার সঙ্গী হন। কিন্তু গত কয়েক বছরে ৪৫ বছরের বেশি বয়সী নারীদের মেহরাম ছাড়া হজ করার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। পাঁচ নারীর একটি দল গঠন করে নারীদের হজে যাওয়ার অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

1889 সালের এই ছবিতে কাবার চারপাশে ভক্তদের দেখা যায়
1889 সালের এই ছবিতে কাবার চারপাশে ভক্তদের দেখা যায়

মুসলমানরা হজে গেলে কী করে?

হজযাত্রীরা প্রথমে সৌদি আরবের জেদ্দা শহরে পৌঁছান। সেখান থেকে তারা বাসে করে মক্কা শহরে যায়। তবে মক্কার ঠিক আগে একটি বিশেষ স্থান রয়েছে যেখান থেকে হজের আনুষ্ঠানিক প্রক্রিয়া শুরু হয়। এই বিশেষ স্থানটি মক্কা শহর থেকে আট কিলোমিটার ব্যাসার্ধ থেকে শুরু হয়। এই বিশেষ স্থানকে মীকাত বলা হয়।

আহরাম

হজে যাওয়া সকল হাজীরা এখান থেকে একটি বিশেষ ধরনের কাপড় পরেন যাকে বলা হয় আহরাম। যদিও কিছু মানুষ অনেক আগে থেকেই আহ্রাম পরিধান করে। আহরাম সেলাই নয়, সাদা কাপড়। মহিলাদের আহ্রাম পরার প্রয়োজন নেই, তারা ঐতিহ্যবাহী সাদা পোশাক পরে এবং তাদের মাথা ঢেকে রাখে।

ওমরা

মক্কায় পৌঁছে মুসলমানরা প্রথমে ওমরাহ পালন করে। ওমরাহ একটি ছোট ধর্মীয় প্রক্রিয়া। হজ একটি নির্দিষ্ট মাসে করা হয় তবে ওমরাহ বছরের যে কোনো সময়ে করা যেতে পারে। তবে যারা হজে যান তারা সাধারণত ওমরাহও করেন, যদিও তা বাধ্যতামূলক নয়।

মিনা শহর এবং আরাফাতের ময়দান

ইসলামি জিল-হিজ মাসের ৮ তারিখে আনুষ্ঠানিকভাবে হজ শুরু হয়। 8 তারিখে হাজী মক্কা থেকে প্রায় 12 কিলোমিটার দূরে মিনা শহরে যান। হাজী আট তারিখ মিনায় রাত কাটান এবং পরদিন সকালে অর্থাৎ ৯ তারিখে আরাফাতের ময়দানে পৌঁছান।

হজযাত্রীরা আরাফাতের ময়দানে দাঁড়িয়ে আল্লাহকে স্মরণ করেন এবং তাঁর কাছে তাদের পাপের ক্ষমা প্রার্থনা করেন। হাজী মুজদালফা সন্ধ্যায় শহরে যান এবং ৯ তারিখ রাতে সেখানে অবস্থান করেন। দশমীর সকালে মুসাফিররা আবার মিনা শহরে ফিরে আসে।

জামাত

এর পরে তারা একটি নির্দিষ্ট স্থানে যান এবং প্রতীকীভাবে শয়তানকে পাথর মারেন। তাকে জামারাত বলা হয়। শয়তানকে পাথর মারার পর তীর্থযাত্রীরা একটি ছাগল বা ভেড়া কোরবানি করে। এরপর পুরুষরা তাদের মাথা মুন্ডন করে এবং মহিলারা তাদের কিছু চুল কেটে দেয়।

ঈদুল আজহা

এরপর যাত্রীরা মক্কায় ফিরে এসে কাবার সাতটি প্রদক্ষিণ করে যাকে ধর্মীয়ভাবে তাওয়াফ বলা হয়। এই দিনে অর্থাৎ জিল-হিজের দশমী, সারা বিশ্বের মুসলমানরা ঈদুল আজহা বা বকরিদ উদযাপন করে।

তাওয়াফের পর হজযাত্রীরা আবার মিনায় ফিরে যান এবং সেখানে আরও দুই দিন অবস্থান করেন। মাসের 12 তারিখে শেষবারের মতো হজযাত্রীরা কাবা তাওয়াফ করেন এবং নামাজ আদায় করেন। এভাবেই হজের প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়।

টেলিগ্রাম এ জয়েন করুন

Leave a Comment