আয়াতুল কুরসি বাংলা উচ্চারণ অর্থ ঐতিহ্য, ও ফজিলত

টেলিগ্রাম এ জয়েন করুন

আয়াতুল-কুরসি’ হল কুরআনের ২য় সূরা আল-বাকারার ২৫৫তম আয়াত। শ্লোকটি বলে যে কীভাবে কিছুই এবং কাউকেই ঈশ্বরের সাথে তুলনীয় বলে গণ্য করা হয় না। এটি কুরআনের সবচেয়ে পরিচিত আয়াতগুলির মধ্যে একটি এবং মুসলিম বিশ্বে ব্যাপকভাবে মুখস্থ ও প্রদর্শিত হয়। এটি প্রায়শই জ্বিন থেকে রক্ষা করার জন্য পাঠ করা হয়।

আয়াতুল কুরসি বাংলা উচ্চারণ

উচ্চারণ—আল্লাহু লা-ইলাহা ইল্লা হু-আল্‌ হাইউল কাইউম, লা-তাখজুহু সিনাতাওঁ অলা নাওম, লাহু মা-ফিস্ সামাওয়াতি অমা ফিল্ আরদি, মানজাল্লাজি ইয়্যাক্ফাউ ইন্দাহু ইল্লা বিইজ্‌নিহী ইয়ালামু মা বায়না আয়দিহিম্ অমা-খাল্‌ফাহুম অলা ইউহিতুনা বিশাইম্ মিন্ ইল্‌মিহী ইল্লা বিমা শা–য়া, অসিয়া ক্বোসিউহুস্ সামাওয়াতি অল্ আরদা অলা ইয়াউদূহ হিজুহুমা অয়া-হুয়াল্ আলিউল আজীম। লা-ইক্রা-হাফিদ্দিনে, ক্বাত্তাবাইয়্যানার্ রুদু মিনাল গাইয়ু ফামাই ইয়াকুফুর বি-ত্তাগুতে অ-ইউমিম্ বিল্লাহি ফাকাদিস-তাসাকা বিশ্ ওওয়াতিল উসকা লানফিসা মালাহা ওয়াল্লাহু সামিউন্ আলিম। আল্লাহ্ অলিইউল্লাজিনা আ-মানু ইউরিজ্জুহুম্ মিনাজুলুমাতি ইলানূরি, ওয়াল্লাজিনা কাফারু আউলিয়াউহুমুত্তাগুতু ইউরিজুনাহুম্ মিনান্নূরি ইলাজ্জুলুমাতি উলা-য়িকা আস্হাবুন্নারি, হুম্ ফিহা খা-লিদুন।

আয়াতুল কুরসি বাংলা অর্থ

1. অর্থ— তিনি ছাড়া আর কারো উপাসনা করার অধিকার নেই। তন্দ্রা কিম্বা নিদ্রা তাঁহাকে স্পর্শ করে না। ভ্যূলোক ও আকাশে যাহা বিদ্যমান, তাহা তাঁহারই। তাঁহার অনুমতি ভিন্ন কেহ তাঁহার নিকট পরিত্রাণের অনুরোধ করিতে পারে? তিনি ভূত ভবিষ্যৎ জানেন। মানব তাঁহার অভিপ্রায় ব্যতীত তাঁহার অসীম জ্ঞান উপলব্ধি করিতে পারে না। ভ্যূলোক ও দ্যুলোক ব্যপিয়া তাঁহার সিংহাসন বিস্তৃত এবং ঐ সংরক্ষার্থে তাঁহাকে চিন্তান্বিত হইতে হয় না। (কারণ) তিনি উন্নত এবং মহান্। ধর্ম সম্বন্ধে বলপ্রয়োগ নাই, নিশ্চয় ভ্রান্তি হইতে সুপথ প্রকাশিত হইয়াছিল। অতএব যে শয়তানকে অবিশ্বাস করে এবং আল্লাহ্র প্রতি বিশ্বাস স্থাপন করে, তবে নিশ্চয়ই সে সুদৃঢ় অবলম্বন ধারণ করিয়াছে—যাহা ছিন্ন হইবার নহে, এবং আল্লাহ্ শ্রবণকারী মহাজ্ঞানী। যাহারা বিশ্বাস স্থাপন করিয়াছে, আল্লাহ্ তাহাদের অভিভাবক—তিনি তাহাদিগকে অন্ধকার হইতে আলোকের দিকে লইয়া যান; এবং যাহারা অবিশ্বাস করিয়াছে শয়তান তাহাদের পৃষ্ঠপোষক, সে তাহাদিগকে আলোক হইতে অন্ধকারের দিকে লইয়া যায়। উহারাই নৱকাগ্নির অধিবাসী—তাহারা তন্মধ্যে সর্বদা অবস্থান করিবে।


2. অর্থ—  আল্লাহ! লা ইলাহা ইল্লা হুওয়া (তিনি ছাড়া আর কারো উপাসনা করার অধিকার নেই), চিরজীবী, যিনি বিদ্যমান সবকিছুকে রক্ষা করেন এবং রক্ষা করেন। তন্দ্রা বা ঘুম তাকে গ্রাস করে না। নভোমন্ডল ও পৃথিবীতে যা কিছু আছে সব তাঁরই। কে আছে যে তাঁর অনুমতি ছাড়া তাঁর কাছে সুপারিশ করতে পারে? তিনি জানেন তাদের (তাঁর সৃষ্টি) দুনিয়াতে কি হবে এবং পরকালে তাদের কি হবে। এবং তারা কখনই তাঁর জ্ঞানের কোন কিছুই পরিবেষ্টন করবে না যা তিনি চান ছাড়া। তাঁর কুরসি আসমান ও জমিন জুড়ে বিস্তৃত, এবং তিনি তাদের রক্ষা ও সংরক্ষণে কোন ক্লান্তি অনুভব করেন না। আর তিনিই সর্বোত্তম, সর্বশ্রেষ্ঠ।

অনুবাদ: নোবেল কুরআন , 1999


ঐতিহ্য

আয়াতুল কুরসিকে হাদিস অনুসারে কুরআনের সর্বশ্রেষ্ঠ আয়াত হিসেবে গণ্য করা হয় । আয়াতটিকে কুরআনের সবচেয়ে শক্তিশালী একটি হিসাবে বিবেচনা করা হয় কারণ এটি পাঠ করার সময়, ঈশ্বরের মহত্ত্ব নিশ্চিত করা হয় বলে বিশ্বাস করা হয়। যে ব্যক্তি সকাল-সন্ধ্যা এই আয়াতটি পাঠ করবে সে জ্বীন ও শয়তানের অনিষ্ট থেকে আল্লাহর নিরাপত্তায় থাকবে ; এটি দৈনিক আদখার নামেও পরিচিত।

এটি জ্বীন এবং শায়তিন থেকে নিরাময় এবং সুরক্ষার জন্য ভুতুড়ে ব্যবহার করা হয় । যেহেতু সিংহাসন আয়াতটি আধ্যাত্মিক বা শারীরিক সুরক্ষা প্রদান করে বলে বিশ্বাস করা হয়, এটি প্রায়শই মুসলমানরা ভ্রমণে বের হওয়ার আগে এবং ঘুমাতে যাওয়ার আগে পাঠ করে থাকে।

আয়াতটি সারাদিনের জন্য খবিস জিনদের থেকে নিরাপত্তা ও বেঁচে থাকার জন্যও ব্যবহৃতহয়। প্রত্যেক নামাজের পর আয়াতটি পাঠ করলে জান্নাতে প্রবেশ করা যাবে বলে বিশ্বাস করা হয়।

টেলিগ্রাম এ জয়েন করুন
Share on:

Leave a Comment