ভক্তি ও সুফি আন্দোলন: ভক্তি ও সুফি আন্দোলন pdf

টেলিগ্রাম এ জয়েন করুন

ভারতে ভক্তি ও সুফি আন্দোল

ভারতে ভক্তি ও সুফি আন্দোলন হিন্দু ও মুসলমানদের মধ্যে সম্প্রীতি আনয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিল।

ভক্তি আন্দোলন ভারতে পুরো ধর্মীয় দৃশ্যপটকে বদলে দেয়।
ভক্তি আন্দোলন ভারতে পুরো ধর্মীয় দৃশ্যপটকে বদলে দেয়।

ভক্তি আন্দোলন

ভক্তি আন্দোলন ছিল হিন্দুধর্মের একটি সংস্কার আন্দোলন। হিন্দু ও মুসলমানদের মধ্যে সম্প্রীতি ও স্বাভাবিক সম্পর্ক আনয়নে এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ অবস্থান দখল করে আছে।

আরও দেখুন: ভক্তি আন্দোলন: সংজ্ঞা, বৈশিষ্ট্য, বিস্তার জানুন এখানে

শৈব ও বৈষ্ণবদের মধ্যে ব্যবধান দূর করার জন্য ভক্তি সম্প্রদায়ের বিকাশ প্রথম দক্ষিণ ভারতে 7-8 ম শতাব্দীতে শুরু হয়েছিল। এটি তীব্র ব্যক্তিগত ভক্তি এবং ঈশ্বরের কাছে সম্পূর্ণ আত্মসমর্পণের জন্য দাঁড়িয়েছিল। এটি ঈশ্বরের ঐক্য, মানুষের ভ্রাতৃত্ব এবং সকল ধর্মের সমতায় বিশ্বাসী ছিল। ভক্তি আন্দোলনের শিকড় উপনিষদ, পুরাণ এবং ভগবদ্গীতায় পাওয়া যায়। শঙ্করাচার্য এই সংস্কার আন্দোলনের প্রথম এবং প্রধান উদ্যোক্তা হিসেবে পরিচিত।

ইসলামের আবির্ভাবের পর সাধারণ মানুষের জীবনে হিন্দু ধর্মকে একটি জীবন্ত সক্রিয় শক্তি হিসেবে গড়ে তোলার প্রয়োজনীয়তা গভীরভাবে অনুভূত হয়েছিল। ইসলাম তার উদার দৃষ্টিভঙ্গি, তার অনুসারীদের মধ্যে মর্যাদার সমতা এবং এক ঈশ্বরের ধারণার সাথে হিন্দু সমাজের জন্য বড় হুমকি সৃষ্টি করেছিল যেটি আচার-অনুষ্ঠান, অনমনীয় বর্ণপ্রথা, অস্পৃশ্যতার কুফল এবং দেব-দেবীর বহুবিধতায় ভুগছিল।

এই পরিস্থিতিতে অনেক নিম্ন শ্রেণীর হিন্দু এই বিষয়ে ইসলামের ক্যাথলিক দৃষ্টিভঙ্গির দ্বারা আকৃষ্ট হয়েছিল। তারা ইসলাম গ্রহণের জন্যও প্রলুব্ধ হয়েছিল যা তাদের সমাজে আরও ভাল মর্যাদা এবং একটি কম কষ্টকর ধর্ম বহন করতে পারে। কিন্তু এই সংকটময় সময়ে ভক্তি আন্দোলনের প্রচারকরা বিভিন্ন ধর্মের মধ্যে সম্প্রীতি আনার চেষ্টা করেছিলেন। প্রায়ই হিন্দু বর্ণ প্রথার নিন্দা করেন। যদিও ভক্তি সম্প্রদায়ের একটি দীর্ঘ ঐতিহ্য ছিল,

ভক্তি আন্দোলনের বৈশিষ্ট্য

এর প্রবক্তারা ‘ঈশ্বর-মাথার ঐক্য’ প্রচার করেছিলেন এবং জোর দিয়েছিলেন যে ‘ঈশ্বরের প্রতি ভক্তি’ এবং তাঁর প্রতি বিশ্বাস মুক্তির দিকে পরিচালিত করেছিল। এটি সমস্ত মানুষের সমতা এবং সর্বজনীন ভ্রাতৃত্বের উপর জোর দেয়। ভক্তি সম্প্রদায়ের অন্যান্য নীতিগুলি ছিল হৃদয়ের পবিত্রতা এবং সৎ আচরণ। এইভাবে এই ধর্মের মৌলিক বৈশিষ্ট্যগুলির সাথে সুফিবাদের অনেক মিল ছিল। এটি ভারতে ইসলামের বিকাশকে পরীক্ষা করতে ব্যাপকভাবে সাহায্য করেছিল।

আরও পড়ুন: মধ্যযুগের ভারতে ভক্তি আন্দোলনের মূল বৈশিষ্ট্যগুলি কী ছিল?

ভক্তি আন্দোলনের প্রভাব

ভক্তি আন্দোলন সাধারণ জনগণের মধ্যে জনপ্রিয় হয়ে ওঠে কারণ এর শিক্ষাগুলি বিভিন্ন জনপ্রিয় ভাষায় স্তোত্রের আকারে প্রচার করা হয়েছিল। এই সহজলভ্য আকারে ভক্তি ধারণাগুলি জনসংখ্যার বিস্তৃত স্তরের মধ্যে ছড়িয়ে পড়েছিল এবং স্তোত্রগুলি প্রায়শই লোকগানে পরিণত হয়েছিল। ভক্তি আন্দোলনের নেতাদের মধ্যে রামানন্দ, কবির, রামানুজ, শ্রীচৈতন্য, নানক প্রমুখ বিশিষ্ট ছিলেন।

আরও পড়ুন: ভক্তি আন্দোলনের উত্থান ও প্রভাব

সুফি আন্দোলন

সুফি আন্দোলনের দুটি উদ্দেশ্য ছিল:

  1. তাদের নিজেদের আধ্যাত্মিক উন্নতি করতে এবং
  2. মানবজাতির সেবা করার জন্য।

সুফিবাদ, যা একটি সংস্কার আন্দোলন হিসাবে শুরু হয়েছিল, মুক্ত-চিন্তা, উদার ধারণা এবং সহনশীলতার উপর জোর দেয়। তারা সকল মানুষের সমতা ও মানুষের ভ্রাতৃত্বে বিশ্বাসী ছিল। তাদের সার্বজনীন ভ্রাতৃত্বের ধারণা এবং সুফি সাধকদের মানবতাবাদী ধারণা ভারতীয় মনকে আকৃষ্ট করেছিল। ভক্তি কাল্ট নামে সুফিবাদের অনুরূপ একটি আন্দোলন ইতিমধ্যেই ভারতে মুসলিম বিজয়ের প্রাক্কালে শুরু হয়েছিল। তাই উদারমনা সুফিদের ভারতবর্ষে স্বাগত জানানো হয়েছিল। সুফি আন্দোলন দুই ধর্মের অনুসারীদের মধ্যে ব্যবধান দূর করতে এবং হিন্দু ও মুসলমানদের একত্রিত করতে খুবই সহায়ক প্রমাণিত হয়েছিল।

আরও পড়ুন: সুফীবাদ কি: সুফিবাদের উদ্ভব ও বিকাশ: দুজন সুফী সাধকের নাম

আকবরের শাসনামলে সুফি আন্দোলন গতি পায়, যিনি সুফি সাধকদের প্রভাবে একটি উদার ধর্মীয় নীতি গ্রহণ করেছিলেন।

আবুল ফজল ভারতে ১৪টি সিলসিলার অস্তিত্বের কথা উল্লেখ করেছেন। নেতা বা পীর এবং তার মুরিদ বা শিষ্যদের মধ্যে একটি ঘনিষ্ঠ যোগসূত্র ছিল সুফি পদ্ধতির একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান।

খ্রিস্টীয় দ্বাদশ শতাব্দীতে সুফিবাদ ভারতে পৌঁছেছিল ত্রয়োদশ ও চতুর্দশ শতাব্দীতে এর প্রভাব উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি পায়। ভারতে চিস্তি ও সোহরাওয়ার্দী সিলসিলা ছিল সর্বাধিক বিশিষ্ট।

খাজা মঈনুদ্দিন চিস্তি ভারতে চিস্তি আদেশ প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। আজমীরে তাঁর দরগাহ মুসলিম ও হিন্দু উভয়েরই শ্রদ্ধার কেন্দ্রে পরিণত হয়েছিল। 1236 খ্রিস্টাব্দে তাঁর মৃত্যুর পর, তাঁর ভক্তরা আজমীরে একটি বার্ষিক উরস উত্সব পালন করতে থাকে। তবে চিস্তি ধারার সবচেয়ে বিখ্যাত সুফি সাধক ছিলেন নিজামুদ্দিন আউলিয়া। তিনি একটি সাধারণ কঠোর জীবনযাপন করেন এবং দিল্লিতে বসবাস করতেন। তাঁর বিশাল শিক্ষা, ধর্মীয় জ্ঞান এবং সমস্ত ধর্মের প্রতি সহনশীল মনোভাবের দ্বারা তিনি হিন্দু ও মুসলিম উভয় জনসাধারণের ভক্তি অর্জন করেছিলেন।

ভারতে সুফি আন্দোলন হিন্দু ও মুসলমানদের মধ্যে শান্তি ও মৈত্রী প্রতিষ্ঠায় সাহায্য করেছিল।

সুফিবাদের প্রভাব

সুফিবাদের উদারপন্থী ধারণা এবং অপ্রচলিত নীতিগুলি ভারতীয় সমাজে গভীর প্রভাব ফেলেছিল। সুফি সম্প্রদায়ের উদার নীতিগুলি গোঁড়াদের সংযত করেছিল। মুসলমানরা তাদের মনোভাব এবং অনেক মুসলিম শাসককে তাদের অমুসলিম প্রজাদের প্রতি সহনশীল মনোভাব পোষণ করতে উৎসাহিত করেছে। বেশিরভাগ সুফি সাধক তাদের শিক্ষাগুলি সাধারণ মানুষের ভাষায় প্রচার করেছিলেন যা উর্দু, পাঞ্জাবি, সিন্ধি, কাশ্মীরি এবং হিন্দির মতো বিভিন্ন ভারতীয় ভাষার বিবর্তনে ব্যাপক অবদান রেখেছিল। সুফি আন্দোলনের প্রভাব গভীরভাবে অনুভূত হয়েছিল সেই সময়ের কিছু বিখ্যাত কবি, যেমন আমির খসরু এবং মালিক মুহম্মদ জয়সী, যারা সুফি নীতির প্রশংসা করে ফার্সি ও হিন্দিতে কবিতা রচনা করেছিলেন।

ভক্তি ও সুফি আন্দোলন pdf

Download Now

আরও পড়ুন: সুফি আন্দোলন: একটি বিস্তারিত সংক্ষিপ্তসার

টেলিগ্রাম এ জয়েন করুন

Leave a Comment