হারানো দিনের স্মৃতি: হারানো দিনের পুরনো স্মৃতি

টেলিগ্রাম এ জয়েন করুন

হারানো দিনের স্মৃতি’ গল্প

বিষয় হিসেবে এর একটি বিশেষ গুরুত্ব রয়েছে। এর কারণ বিষণ্ণতা এবং তার সঙ্গে আসা কফি কবিদের আরও সৃজনশীলতা দেয়। শুধু হারানো দিনের স্মৃতি ‘স্মরণের’ অনেক রং পাওয়া যায়। সে অতিবাহিত মুহূর্তগুলোর তিক্ততা হোক বা তিক্ততা বা যেকোনো আনন্দের মুহূর্ত, সবই গল্প জীবনের রঙ উপস্থাপন করে। এই ধরনের সতর্কতা থেকে সরসার বাংলা গল্পের একটি সংকলন এখানে উপস্থাপন করা হচ্ছে। গল্পের এই সংকলনটি সেই হারানো দিনের স্মৃতির উদ্দেশ্যে উৎসর্গ করা হল।

এটা নব্বই দশকের বিয়ের অনুষ্ঠানের ছবি।
এটা নব্বই দশকের বিয়ের অনুষ্ঠানের ছবি।

হারানো দিনের স্মৃতি’

কোথায় গেল সোনার সময় সোনার মানুষ কই!
কোথায় গেল লাঙ্গল জোয়াল কোথায় গেল মই।
কোথায় গেল গরুর গাড়ি কোথায় গরুর হাল
কোথায় গেল রংবেরঙের ডিঙি নায়ের পাল।
কোথায় গেল মাটির কলস
সেই কলসির জল
ঘরের শোভা রঙিন শিখা কোথায় গেল বল!
শকুনরা সব কোথায় গেল কোথায় গেল কাক
কোথায় গেল শিয়াল মামার হুক্কাহুয়া ডাক।
কোথায় গেল শিল আর পাটা পাটার ভাটা ঝাল
কোথায় গেল কাঠের ঢেকি ঢেকির ছাঁটা চাল।
কোথায় গেল পালকি চলার হুনহুনাহুন সুর
ঠেলার গাড়ি হারিয়ে গেল হায়রে কত দূর।
কোথায় গেল রাত্রি জেগে চিঠি লেখার দিন
কোথায় গেল হারিকেন আর কোথায় কেরোসিন।
কোথায় গেল গরুর টানা আঁখ মারানোর কল
কোথায় গেল গ্রামের বাড়ির বাংলা ঘরের ছল।
বিয়েবাড়ির গীতের আসর কোথায় গেল ভাই
কলাপাতায় আহার করার মেজবানিটাও নাই।
কোথায় গেল কাঁচের চুড়ি রেশমী ফিতার সাজ
কোথায় গেল হায় রুমালের সুতার কারুকাজ।
কোথায় গেল মাটির কূপের মিষ্টি স্বাদের জল
কোথায় গেল ডাল মারানোর শিলার যাঁতাকল।
কোথায় গেল কুলুর বলদ বন্ধ যাহার চোখ
কোথায় গেল হুক্কা তামাক হুক্কা টানার লোক।
হারানো সুর খুঁজতে গিয়ে সবচেয়ে ব্যথা পাই
যখন দেখি কোরআন শিখার মতকব ও আর নাই।

দেখেছেন- ফেরদৌস আহমেদ

আপনার গল্পটি এই আইডিতে পাঠান[email protected]

সাবজেক্ট লাইন লিখতে ভুলবেন না

অনুগ্রহ করে শুধুমাত্র অপ্রকাশিত গল্প পাঠান

পরবর্তী গল্প: ধৈর্যের ফল মিষ্টি হয়: সাবরা কা ফল মিঠা হোতা হ্যায় গল্প

টেলিগ্রাম এ জয়েন করুন
Share on:

Leave a Comment