গান্ধী জয়ন্তীতে কবিতা: গান্ধীজি এবং 02 অক্টোবর গান্ধী জয়ন্তীর কবিতা পড়ুন

Join Telegram

গান্ধী জয়ন্তীর কবিতা – মহাত্মা গান্ধী, যাকে জাতির পিতা এবং বাপু বলা হয়, সারা জীবন অন্যায়ের বিরুদ্ধে লড়াই করেছেন। তাঁর দেশ স্বাধীন দেখার স্বপ্ন পূরণ হয়েছিল, কিন্তু তিনি যে স্বাধীন ভারতের স্বপ্ন দেখেছিলেন তা হয়তো আজ পর্যন্ত অসম্পূর্ণ। গান্ধীজির পরে, তাঁর চিন্তাধারা এবং তাঁর আদর্শও ভারত গঠনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে। গান্ধীজির অনেক ভক্ত তাকে তাদের আদর্শ বলে মনে করেন এবং তার দেখানো পথ অনুসরণ করেন। দেশের অনেক বড় কবি তাদের কবিতার মাধ্যমে গান্ধীজিকে নিয়ে লিখেছেন।

গান্ধী জয়ন্তীতে কবিতা

আপনি যদি কবিতা পড়তে ভালোবাসেন এবং বাপুকে কবিতার মাধ্যমে জানতে চান, তাহলে Kalikolom.com আপনার জন্য নিয়ে এসেছে গান্ধী জয়ন্তীতে হিন্দিতে গান্ধী জয়ন্তী কবিতা। গান্ধী জয়ন্তী উপলক্ষে, আপনি আপনার স্কুল বা কলেজে ২রা অক্টোবর গান্ধী জয়ন্তীতে কবিতা আবৃত্তি করতে পারেন। এর জন্য, আপনি নীচে দেওয়া মহাত্মা গান্ধী জয়ন্তীর কবিতাটি পড়ে মনে করতে পারেন। হিন্দিতে মহাত্মা গান্ধীর উপর কবিতা বলার জন্য আপনাকে কয়েকদিন আগে অনুশীলন করতে হবে। নীচে আমরা হিন্দি বিশ্বের বিখ্যাত কবিদের হিন্দিতে গান্ধী জয়ন্তীর কবিতা দিয়েছি।

আমরা আপনাকে বলি যে আপনি যখন হিন্দিতে গান্ধী জয়ন্তীর কবিতা (Hindi Poems On Gandhiji) বা হিন্দিতে গান্ধীজির উপর হিন্দি কবিতা পড়বেন, তখন আপনি গান্ধীজী সম্পর্কে বিভিন্ন চিন্তাভাবনা এবং লেখার একটি ভিন্ন উপায় জানতে পারবেন। আপনিও যদি হিন্দি কবিতা লিখতে পছন্দ করেন এবং গান্ধীজীর উপর একটি কবিতা বা ২রা অক্টোবর একটি কবিতা লিখতে চান, তাহলে আপনি এই কবিতাগুলি থেকেও অনেক কিছু শিখতে পারবেন। গান্ধী জয়ন্তীর কবিতার পাশাপাশি, আপনি এই পোস্ট থেকে হিন্দি কবিতায় মহাত্মা গান্ধীও পড়তে পারেন। ২রা অক্টোবর গান্ধী জয়ন্তীতে হিন্দিতে (Gandhi Jayanti Poems In Hindi) কবিতাটি পড়তে নিচে দেখুন।

02 অক্টোবর
গান্ধী জয়ন্তী হিন্দিতে কবিতা 02 অক্টোবর গান্ধী জয়ন্তী হিন্দিতে কবিতা

গান্ধী জয়ন্তীর কবিতা

কবিতা 1

গান্ধী দুর্দশা থেকে দূরে পৌঁছেছেন। মৃতপ্রায় মানুষের এই ভারতে তুমি
বড় হয়েছ।

বেঁচে থেকে জীবন যাপন করা সহজ নয়
,
মরে আবার জীবন যাপন করা সহজ।

– গান্ধীর প্রতিকৃতি দেখা/ কেদারনাথ আগরওয়াল

এটিও পড়ুন

কবিতা 2

আবার জন্ম নেব ,
তারপর আসব এই জায়গায় , অভাবের মাঝে
, ছলছল চোখের ভিড়ে, আমি মানুষের বিকৃত পিঠে আদর করব, খোঁড়া হাঁটতে হাঁটতে পা কাঁধে তুলে নেব। পতিত পোস্ট-ম্যানেজড পরাজিত বাধ্যতা বাহুতে।

এই অগণিত নীরব কণ্ঠে
কি বেদনা এই দলের কেউ শোনে না
! কিন্তু আমি চাই বিশ্ব
এই কণ্ঠস্বর এবং এই হাহাকার শুনুক।

আমার অভ্যাস আছে আলো
যেখানেই খুঁজি, হাহাকার করব, নীরব বা চিৎকার করব, কিংবা যেখানেই হারাবার বিরক্তি পাব সেখানেই ভালবাসার সেতার বাজাব।

জীবন আমাকে বহুবার উত্তেজিত
করে অলঙ্ঘনীয় সাগরে ছুঁড়ে ফেলেছে,
আগুন-ফায়ারিংয়ে ছুঁড়ে ফেলেছে,
সেখানেও আলোর মশাল জোগাড় করার চেষ্টা
না করলে
কি ভয় পাব এই গুলি বন্দুককে?
তুমি আমাকে দোষ দাও
আমি তোমার নির্জনতাকে গলা টিপে মেরেছি তবু
গান গাইব
এই প্রার্থনা সভায় আপনারা
সবাই আমাকে গুলি করলেও আমি
মরে যাব
তবু আবার জন্ম নেব কাল
আবার আসব।

– গান্ধীর জন্মদিনে / দুষ্যন্ত কুমার

কবিতা 3

একদিন ইতিহাস জিজ্ঞেস করবে
তুমি গান্ধীর জন্ম দিয়েছিলে,
যখন হিংস্রতা,
বিভ্রান্তিকর বিজ্ঞান শক্তির সাথে সমন্বয় করে,
ধর্ম, সংস্কৃতি, সভ্যতাকে অবগুণ্ঠিত
করে পৃথিবী ধ্বংসের ষড়যন্ত্রে লিপ্ত ছিল,
তখন তুমি কোথায় ছিলে? এবং আপনি কি করবেন!

একদিন ইতিহাস জিজ্ঞেস করবে
তুমি গান্ধীর জন্ম দিয়েছিলে, যখন অন্যায় পদদলিত করেছিল
পাশবিক শক্তির
সুর- ক্ষিপ্ত, উদেদ, অহংকার- উন্মাদ- পিষে দিয়েছিল
দুর্বল, নিষ্পাপ, নিরপরাধ তুমি কোথায় ছিলে? এবং আপনি কি করবেন?

একদিন ইতিহাস জিজ্ঞাসা করবে
যে আপনি গান্ধীকে জন্ম দিয়েছিলেন, যখন আপনি
অধিকারী, শোষিত, স্বার্থপর
, নির্লজ্জ, নির্ভীক, নির্ভীক, দুঃখী
: জাগ্রত,
একটি সুপরিচালিত জাতিতে, আপনি এটি একটি বঞ্চিত জাতিতে করতেন,
কোথায় ছিলেন ? আপনি? এবং আপনি কি করবেন?

কারণ গান্ধী
হিংসার চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা না করলে বৃথা হয়ে যেতেন, কারণ অন্যায়ের জয় হলে
গান্ধী বৃথা হতেন, কারণ নষ্ট জাত মুক্ত না হলে গান্ধী তার পাপ ধুয়ে ফেলতেন!

– গান্ধী/ হরিবংশরায় বচ্চন

২রা অক্টোবর গান্ধী জয়ন্তীতে কবিতা

কবিতা 4

দেশে যেখানেই যাই, সেখানেই
ডাক শুনতে পাই , “
জড়তা ভাঙতে
ভূমিকম্প আন ।
অন্ধকারে আবার
তোমার টর্চ জ্বালাও।
পুরো পর্বতটাকে হাতের তালুতে তুলে,
পবন কুমারের মতো স্কেল।
ঝড় তুলতে কবি
, বজ্র, বজ্র, বজ্র!”

আমি ভাবছি কখন আমার দরকার ছিল?
লোকেরা যাকে আমার বজ্র
বলে মনে করে তা আসলে গান্ধীর,
সেই গান্ধী যিনি আমাদের জন্ম দিয়েছেন।

তারপরও আমরা
শুধু গান্ধীর ঝড় দেখেছি,
গান্ধী নয়।

তারা ঝড় এবং বজ্রপাতের
পরে বাস করত ।
আসলে
তার লীলায় জড়িয়ে থাকা
ঝড়- বৃষ্টি দেখে হাসতেন।

ঝড় ঘন হয় না,
সূক্ষ্ম কণ্ঠে ওঠে।
যে শব্দ নির্জনে মোমের মোমবাতির মতো
জ্বলে ,
ঈগল নয়, ঘুঘুর গতিতে চলে।

গান্ধী ঝড়ের জনক
এবং ঈগলের বাজপাখিও ছিলেন।
কারণ তিনি ছিলেন নীরবতার কণ্ঠস্বর।

– গান্ধী / রামধারী সিং “দিনকর”

কবিতা 5

গান্ধী আমাদের সাদাসিধে, আর শেখ প্রতিশোধ নিয়েছে,
দেখুন ভগবান কি করেন, স্যারও অফিস খুলেছেন,
সম্মানের ধাঁধা বুঝলেন, সবাই বুঝেছেন
কী ছিল তুষ, সেটা সুজি, কী মাশা ছিল
এখন তোলা! টাকা কাটা হয় বন্ধুদের, এই সময়ে নিয়ম ভাগাভাগি হয় ,
কম্পু থেকে অত্যাচার দূর হয়, আছে বে-নূর মহল্লা-টোলা।

– গান্ধী আমাদের ভোলা হ্যায়/ আকবর এলাহাবাদী

কবিতা 6

আমাদের গান্ধী কেমন সাধু, আমাদের কেমন সাধু!

বিশ্ব শত্রু ছিল, তার শত্রু ছিল বিশ্ব।
শেষ পর্যন্ত যখন সাধকে দেখলাম, সে বিশ্ব জয় করে হেরেছে।

আমাদের গান্ধী কেমন সাধু, আমাদের কেমন সাধু!

সত্যের আলোয় তার মনে আলো ছিল।
বাতিনের একমাত্র শক্তি বিষের মধ্যে শক্তি।

আমাদের গান্ধী কেমন সাধু, আমাদের কেমন সাধু!

এটা কি পুরাতন ছিল নাকি নতুন জন্মে বংশীর অভিমত।
মোহন নামটি ঠিক ছিল কিন্তু সাধের রূপ একই ছিল।

আমাদের গান্ধী কেমন সাধু, আমাদের কেমন সাধু!

তিনি ভারতের আকাশে এক উজ্জ্বল নক্ষত্র।
সত্যিই জ্ঞানী, সত্যিই মোহন, সত্যিই সুন্দর।

আমাদের গান্ধী কেমন সাধু, আমাদের কেমন সাধু!

– মহাত্মা গান্ধী/সাগর নিজামী

গান্ধীজীর উপর কবিতা

কবিতা 7

আমাদের গালে কেউ থাপ্পড় মারে না, এখন
আমরা যখন অন্য গাল তাপ দিয়ে তুলি
, এখন তারা আমাদের ধারালো দাঁত
আমাদের ঘাড়ে চেপে ধরে
এবং তাদের হাজার জিভ আমাদের এই দেশে গান্ধীর
রক্তের ফোয়ারার মতো ফুলে যায় । আরও সুস্থ থাকতে হবে। যাতে আমরা তাদের রক্তের লালসা নিভিয়ে দিতে পারি অথবা আমরা এই অভ্যাস থেকে মুক্তি পেতে পারি

গান্ধীর দেশে/ ভিপিন কুমার শর্মা

কবিতা 8

আবার
গান্ধীজি নীরব ছিলেন ,
সত্য ও অহিংসার নেতার
জন্মভূমি
সাম্প্রদায়িকতার দৌরাত্ম্যে
পুড়ছিল , তিনি কি
এই দিন মুখে পাথর মেরে
ভারত-পাকিস্তানের বিভাজন
মেনে নিয়েছিলেন?
হঠাৎ তিনি অনুভব করলেন যে
কেউ তার আত্মাকে বিদ্ধ করেছে
,
তিনি ‘হে রাম’ বলার চেষ্টা করেছিলেন
কিন্তু তারপরে এক ধর্মান্ধদের ভিড়
তাকে পদদলিত করতে থাকে।

– হে রাম / কৃষ্ণ কুমার যাদব

বাপুকে নিয়ে কবিতা

কবিতা 9

তুমি মাংসহীন, তুমি রক্তহীন,
হে হাড়হীন! হে অস্থিহীন,
তুমি শুদ্ধ-বুদ্ধ আত্মা,
হে শাশ্বত পুরাণ, হে চির নব!
আপনি জীবনের সমগ্র একক,
যেখানে জড়বস্তু-শূন্য শোষিত হয়;
ভিত্তি হবে অমর, যার
ওপর স্থির হবে আগামীর সংস্কৃতি!

তুমিই মাংস, তুমি রক্ত-অস্থি,
যার থেকে নবযুগের দেহ,
তুমি ধন্য! তোমার আত্মত্যাগই
বিশ্ব-ভোগের বর।
এই ভস্ম-কাম দেহের রজ হইতে বিশ্ব কর্মে
পরিপূর্ণ হইবে, নূতন জগৎ-জীবন ,
সত্য-অহিংসার বুনন হইতে মনুষ্যত্ব উদয় হইবে
!

বাপু/সুমিত্রানন্দন পন্তের কাছে

কবিতা 10

বাপু হত্যার চল্লিশ দিন পর,
আমি দিল্লি গিয়েছিলাম সেই জমি দেখতে, যে মাটিতে
বাপুজি বুলেট খেয়ে শুষেছিলেন,
যা তাঁর রক্তের লালতায় রঙিন হয়েছিল।

বিড়লা-ঘরের বাঁদিকে সবুজ লন,
যেখানে বাপুর প্রার্থনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছিল,
একপাশে একটি ছোট বেদি তৈরি করা হয়েছিল,
যার উপরে গাঢ় লাল রঙের ফুল ছিল।

সবুজ লনের দিকে তাকিয়ে সেই ফুলগুলোকে
মনে হলো বাপুর রক্ত
​​এখনো তাজা পৃথিবীতে!

তিনটে গুলির শব্দ শুনতে পেলাম,
পায়ের নিচের মাটি আবার কেঁপে উঠল,
তারপর বেদনার কণ্ঠে ‘ও রাম’ শব্দটা ফেটে পড়ল,
কিচিরমিচির বিদ্যুতের স্তরে সমানে , আমার হৃদয়ে বার বার প্রতিধ্বনিত হয়ে
প্রতিধ্বনিত হচ্ছে।
আমাকে তাড়া করতে লাগলো!…

– বাপু / হরিবংশ রাই বচ্চন হত্যার চল্লিশ দিন পর গয়া

কবিতা 11

আমরা সবাই প্রিয় বাপু বাপু ছিল
সারা বিশ্বের থেকে আলাদা।বাপু দেখতে ভারতের উজ্জ্বল ও উজ্জ্বল
নক্ষত্রের
মতো, কিন্তু বাপু ছিলেন
দুর্বল বাপু , বাপু কখনো বাপুকে ভয় পাননি, যিনি বলতেন বাপু সবসময় সত্যকে আলিঙ্গন করে , বাপু, আমরা বাপু। বাপু একটি শিক্ষা বাপু সত্যিকারের পথ দেখানো বাপু চরকা নিয়ে এসেছে, বাপু স্বাধীনতা এনেছে বাপু কখনো সাহস হারায়নি

– প্রিয় বাপু / সিয়ারাম শরণ গুপ্ত

 

Join Telegram
Share on:

Leave a Comment