লেবার কার্ড বানালে কতদিন পর টাকা পাওয়া যাবে এবং কত টাকা পাবেন জানেন?

এই প্রকল্পের আবেদন অনলাইন করা এর যাবে এই অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে গিয়ে edistrict.wb.gov.in

আজকের লেবার কার্ডে কারা আবেদন করতে পারবেন । রাজ্য ও কেন্দ্র সরকার এই প্রকল্প তৈরি করেছেন , এই প্রকল্পের নাম , নির্মাণ শ্রমিক প্রকল্প ।তবে এই প্রকল্প লেবার কার্ড নামেও পরিচিত খবর যেসমস্ত দরিদ্র দিনমুজুররা নির্মাণ কাজের সঙ্গে যুক্ত তাদের কথা মাথায় রেখেই এই প্রকল্প তৈরি করা হয়েছে । সুতরাং এই প্রকল্পে নাম নথিভুক্ত করতে হলে আপনাকে অবশ্যই একজন দিনমজুর ও নির্মাণ শ্রমিক হতে হবে ।

নির্মাণ কর্মী :

আজকের সড়কপথ , রেল , ট্রাম লাইন , সেচ নিকাশি , বিমানবন্দর , ভবন ও রাজমিস্ত্রি , বন্যা নিয়ন্ত্রণ টেলিভিশন , জল সরবরাহ বেবস্থা , টেলিফোন টাওয়ার নির্মাণ , পাইপলাইন , জলাধার , ইলেকট্রিকের তার লাগানো , তেল ও গ্যাস স্থাপন ইত্যাদি এই সমস্ত কাজের সঙ্গে যারা যুক্ত তারা এই প্রকল্পের আবেদন করতে পারবেন ।

লেবার কার্ড আবেদনের শর্তাবলী :

বয়স ১৮-৬০ বিগত এক বছরে নির্মাণ কর্মীকে নূন্যতম ৯০ দিন কাজ করে থাকতে হবে । উপরুক্ত নির্মাণ কাজের মধ্যে একটির সঙ্গে যুক্ত থাকতে হবে ।

আবেদনের জন্য কি কি কাগজপত্র লাগবে?

আধার কার্ড।
মাজকের ভোটার কার্ড ।
রেশন কার্ড ।
ব্যাংকের একাউন্ট।
পাসপোর্ট সাইজ ফটো ।
সিগনেচার অথবা টিপ সই ।

এই প্রকল্পে নথিভুক্ত নির্মাণকর্মী প্রতি মাসে যে সুবিধা পাবেন : এই ও বড় ৬০ বছর পরে ভাতা দেওয়া হয় : – ৬০ বছর পরে প্রতি মাসে ৫০০ টাকা থেকে ৮৭০ টাকা । অতিরিক্ত সুবিধা , কর্মীর মৃত্যু হয়ে গেলে তার স্ত্রী অর্ধেক ভাতা পাবেন।

মনে রাখবেন এই টাকা পাবেন ৬০ বছর পরে প্রতি মাসেই । টাকা পাবেন ৩০ তবে টাকা পাবেন তারাই যারা যারা এই প্রকল্পে নথিভুক্ত আছেন এবং এই প্রকল্পের সুযোগ সুবিধা পেতে গেলে নির্দিষ্ট আবেদনপত্র যথাযথ পূরণ করে , প্রয়োজনীয় কাগজপত্র , পরিচয়পত্র ও পাসবইয়ের প্রত্যায়িত নকল সহ সংশিষ্ট শ্ৰম কমিশনারের অফিসে জমা দিতে হবে । পাশাপাশি যে কোনও রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কে একটি সভিংস অ্যাকাউন্ট খুলতে হবে । আবেদনপত্র মঞ্জুর হলে তার টাকা উক্ত অ্যাকাউন্টে জমা দেওয়া হবে ।

Kalikolom.com

Leave a Comment